অনুসন্ধান

মূল উৎপত্তি

গত জানুয়ারি থেকে ‘ডাব্লিও এইছ ও’, ‘অনির্দিষ্ট’ কোন এক ‘মিনিস্ট্রি অব হেলথ’ সহ বিভিন্ন স্বাস্থ্য সংস্থার বরাত দিয়ে সারা বিশ্বব্যাপী তথাকথিত একটি ‘হেলথ বুলেটিন’ সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রচার করা হয়। কোথাও টেক্সট পোস্ট, কোথাওবা একটি চিঠির ছবি হিসেবে এই ‘হেলথ বুলেটিন’ প্রচার করা হয়। সম্প্রতি বাংলায়ও এই ‘বুলিটিন’ অনুবাদ করে প্রচার করা হয়। এসবের কোনটিই কোন গণস্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষের প্রদানকৃত বিবৃতি নয়।

ইংরেজি ভাষায় এই বার্তাটি প্রচার করা হয়―

Please tell your families, relatives and friends.

WHO Health Bulletin to the Public:

Coronavirus is not bacterial infection hence cannot be treated by antibiotics.

The prevention method now is to keep your throat moist, do not let your throat dry up. Thus do not hold your thirst because once your membrane in your throat is dried, the virus will invade into your body within 10 mins. Drink 50-80cc warm water, 30-50cc for kids, according to age. Everytime you feel your throat is dry, do not wait, keep water in hand. Do not drink plenty at one time as it does not help; instead, continue to keep throat moist. Till end of March, do not go to crowded places, wear mask as needed especially in train or public transportation.
Avoid fried or spicy food and load up vitamin C.

The symptoms/ description are:
1. Repeated high fever.
2. Prolonged coughing after fever.
3. Children are more prone.
4. Adults usually feel uneasy, headache and mainly respiratory related illness.
This disease is contagious. Let’s continue to be prepared for any eventuality and please update yourself on the development of the infection.

এই বার্তায় করোনাভাইরাস সংক্রামণ রোধে, ‘কণ্ঠনালী ভেজা রাখতে’, ‘ভাজা পোড়া ও ঝাল খাবার না খেতে’ এবং ‘বেশী করে ভিটামিন সি সাপ্লিমেন্ট খেতে’ বলা হয়।

বার্তাটি বাংলায় অনুবাদ করেও প্রচারিত হয়।

এমন কোন নজির পাওয়া যায়নি যেখানে কোন গণস্বাস্থ্য অধিদপ্তর এমন কোন পরামর্শ দিয়েছে যে শুকনো কণ্ঠনালীতে এই ভাইরাস বেশী প্রভাব বিস্তার করে। আর তাই পানি পান করা একটি অকার্যকর প্রতিরোধ পদ্ধতি। ভিটামিন সি এর অভাব এই ভাইরাস সংক্রামণে কোনরূপ দুর্বলতা সৃষ্টি করে এমন দাবীও অপ্রমাণিত। এছাড়াও ভাজা ও ঝাল খাবার এর মাধ্যমে এই ভাইরাস সংক্রমণ ঘটায় এমন দাবীও সঠিক নয়।

যুক্তরাষ্ট্রের সেন্টার ফর ডিজিসেস কন্ট্রোল এন্ড প্রিভেনশন (সিডিসি)- নতুন করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবে  শ্বাসতন্ত্রে সংক্রামণ রোধে নিম্নোক্ত বিষয়গুলো অনুসরণ করতে পরামর্শ দিয়েছে[1]― 

  • নূন্যতম ২০ সেকেন্ড ধরে সাবান ও পানি দিয়ে ঘনঘন হাত ধুতে হবে। এলকোহল বেইজড জীবাণুনাশক বা হ্যান্ড সেনিটাইজার যাতে অন্তত ৬০% এলকোহল রয়েছে এমন সামগ্রী দিয়ে হাত ধুতে হবে যদি সাবান আর পানি না থাকে।
  • অপরিষ্কার হাতে চোখ, নাক ও মুখ ধরা থেকে বিরত থাকতে হবে।
  • অসুস্থ ব্যক্তির সাথে নিকটবর্তী যোগাযোগ করা থেকে বিরত থাকতে হবে।
  • অসুস্থ থাকলে বাসায় অবস্থান করুন।
  • কাশি বা হাঁচছি দেওয়ার সময় টিস্যু দ্বারা মুখ ঢাকুন এবং সেই টিস্যুটি ময়লার ঝুড়িতে ফেলুন।
  • যেসব জিনিস বা তল ঘনঘন ধরতে হয়, যেমন (মোবাইল, ল্যাপটপ ইত্যাদি) সেসব ঘনঘন পরিষ্কার ও  জীবাণুমুক্ত করতে হবে।

তবে আলোচ্য এই বার্তায় বলা হয়, “করোনা ভাইরাস ব্যাকটেরিয়াল ইনফেকশন না। তাই এন্টিবায়োটিকে দিয়ে এটির  নিরাময় হবে না।” এই দাবীটি সত্য। এন্টিবায়োটিক দিয়ে ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধ করা যায় না।

পাদটীকা

তথ্যসূত্র

  1. "Coronavirus Disease 2019 (COVID-19): Prevention & Treatment". The Centers for Disease Control and Prevention.

মন্তব্য

আমাদের ফেসবুকগ্রুপে আলোচনায় যুক্ত হোন।: www.facebook.com/groups/jaachai